লজ্জার কিছু নেই, আপনাকে এগুলো জানতেই হবে

লজ্জায় আমরা অনেকেই একান্ত ব্যক্তিগত কিছু বিষয় নিয়ে ডাক্তারের নিকট যাই না। নীরবে নিজে নিজেই মেনে নিচ্ছি। বর্তমানে অধিকাংশ পুরুষের মধ্যে একটা সমস্যা (problem) বেশ প্রকট হয়ে উঠছে। যত যাচ্ছে দিন পুরুষের মধ্যে নপুংসকতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে পুরুষের যৌণ ইচ্ছা ক্রমশঃ কমে যাচ্ছে।

এতে লজ্জার কিছু নেই। একটু সচেতনতা আর কয়েকটা হোম রেমেডি, তাহলেই এই সমস্যার (problem)  সমাধান কিছুটা সম্ভব। তবে যাদের এই অসুবিধা সবে মাত্র দেখা দিয়েছে তাদের ক্ষেত্রে হোম রেমেডি কার্যকরী হতে পারে। কিন্তু সর্বক্ষেত্রে হোম রেমেডি প্রযোজ্য নয়। সেক্ষেত্রে চিকিৎসকের পরামর্শ একান্ত জরুরী।

আসুন জেনে নেওয়া যাক যৌন অক্ষমতার প্রথম ধাপের চিকিৎসাতে (treatment) দৈনন্দিন জীবনে ব্যবহৃত কোন সামগ্রীগুলো উপকারী (useful)।

১. রসুন:
যৌন অক্ষমতার ক্ষেত্রে রসুন খুব ভালো ফল দিয়ে থাকে৷ রসুন কে ‘গরীবের পেনিসিলিন’ বলা হয়। কারণ এটি অ্যান্টিসেপ্টিক এবং immune booster হিসাবে কাজ করে আর এটি অতি সহজলভ্য সব্জী যা আমারা প্রায় প্রতিনিয়্ত খাদ্য হিসাবে গ্রহণ করে থাকি। আপনার যৌন ইচ্ছা ফিরে আনার ক্ষেত্রে এর ব্যবহার খুবই কার্যকরী। কোন রোগের কারণে বা দুর্ঘটনায় আপনার যৌন ইচ্ছা কমে গেলে এটি আপনাকে তা পুনরায় ফিরে পেতে সাহায্য করে।এছাড়া যদি কোন ব্যক্তির যৌন ইচ্ছা খুব বেশী হয় বা তা মাত্রাতিরিক্ত হয় যার অত্যধিক প্রয়োগ তার নার্ভাস সিস্টেমের ক্ষতি করতে পারে এমন ক্ষেত্রে ও রসুন খুবই উপকারী (useful)।

যেভাবে খাবেন
প্রতিদিন দু থেকে তিনটি রসুনের কোয়া কাঁচা অবস্থায় চিবিয়ে খান। এতে আপনার যৌন ইচ্ছা কমে গিয়ে থাকলে তা বৃদ্ধি পাবে। এ ছাড়া গমের তৈরি রুটির সঙ্গে রসুন মিশিয়ে খেলে তা আপনার শরীরে স্পার্ম উত্পাদনের মাত্রা বাড়ায় এবং সুস্থ স্পার্ম তৈরিতে এটি সাহায্য করে।

কবিরাজঃ তপন দেব.এখানে আয়ুর্বেদিক ঔষধের মাধ্যমে নারী ও পুরুষের যৌনরোগ সহ যে কোন রোগের চিকিৎসা (treatment)  করা হয়।এবং দেশে ও বিদেশে ঔষধ পাঠানো হয়। যোগাযোগ ঢাকা খিলগাঁও মোবাঃ ০১৮২১৮৭০১৭০

২. পেঁয়াজ:
কাম-উত্তেজক ও কামনা বৃদ্ধিকারী হিসাবে পেঁয়াজ বহুদিন থেকেই ব্যবহৃত হয়ে আসছে। কিন্তু এটি কিভাবে এই বিষয়ে কার্যকরী তা এখনও পর্যন্ত সঠিক ভাবে জানা যায় নি।

সাদা পেঁয়াজ পিষে নিয়ে তাকে মাখনের মধ্যে ভালো করে ভেঁজে নিয়ে তা প্রতিদিন মধুর সঙ্গে খেলে তা থেকে উপকার (useful) পাওয়া যায়। কিন্তু একটি বিষয় মনে রাখবেন, এটি খাওয়ার আগে ঘণ্টা দুয়েক সময় আপনার পেট খালি রাখবেন।

এইভাবে প্রতিদিন খেলে স্খলন, শীঘ্রপতন বা ঘুমের মধ্যে ধাতুপতন ইত্যাদি সমস্যার (problem)  সমাধান হওয়া সম্ভব।
এছাড়া পেঁয়াজের রসের সঙ্গে কালো খোসা সমেত বিউলির ডালের গুঁড়ো সাত দিন পর্যন্ত ভিজিয়ে রেখে তাকে শুকিয়ে নিন। এঅটির নিয়মিত ব্যবহার আপনার কাম-উত্তেজনা বজায় থাকবেএবং শারীরিক মিলনে দৃঢ়তা বজায় থাকবে।

৩. গাজর:
১৫০ গ্রাম গাজর কুঁচি এক টেবিল চামচ মধু এবং হাফ-বয়েল ডিমের সঙ্গে মিশিয়ে দুমাস খেলে আপনার শারীরিক এই অক্ষমতা কম হতে পারে।

কাজেই এখন আর দুধ্চিন্তা করবেন না। সমস্যার(problem) একেবারে প্রথম ধাপে আপনি বাড়িতে এই পদ্ধতি গুলি মেনে চলে দেখুন হয়তঃ প্রাথমিক ধাপে এই সমস্যার (problem)  সমাধান হতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *